কোটিপতি হওয়ার পাঁচটি চিহ্ন, দেখুন আপনার জীবনে আছে কি না

কোটিপতি হওয়ার পাঁচটি চিহ্ন, দেখুন আপনার জীবনে আছে কি না

ওয়েবডেস্ক: আর্থিক উপার্জন শুরু হলেই সামনে চলে আসে একটার পর একটা স্বপ্নপূরণের সিঁড়ি। একটা তাক লাগানো বাড়ি বা একটা হাল-মডেলের গাড়ি অথবা মনোরম কোনো প্রাকৃতিক পরিবেশে ক’দিনের ছুটি কাটানো ইত্যাদি। কিন্তু এ সবের বাইরে সম্পদশালী হয়ে ওঠার স্বপ্নও নিছক ফেলনা নয়। তবে সবার পক্ষে সেই স্বপ্নকে বাস্তবে প্রতিষ্ঠা দেওয়া অসম্ভব মনে হতে পারে। কিন্তু চেষ্টা করতে ক্ষতি কী?

তাৎক্ষণিক আনন্দ-উত্তেজনা

আপনার মধ্যে কি আছে সময়োচিত চাহিদা পূরণের মাপকাঠি। প্রয়োজন থাকে ্অনেক কিছুরই। কিন্তু ঠিক সময়ে ঠিক চাহিদা পূরণ বাদে বাকি তাৎক্ষণিক আনন্দ-উত্তেজনা রুখে দেওয়ার প্রবণতা যাঁদের মধ্যে থাকে তাঁরা ভবিষ্যৎকে নিজের হাতের মুঠোয় বন্দি করতে পারে। তাৎক্ষণিক পরিতৃপ্তির একটা নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে। তার পরই সব শূন্য। ফলে অর্থোপার্জনের পাশাপাশি যদি তাৎক্ষণিক পরিতৃপ্তি প্রশমনের সদিচ্ছা কারও মধ্যে থাকে, তার তো কোটিপতি হওয়া অনেকটাই সহজ হয়ে যায়।

নিরলস পরিশ্রমের মানসিকতা

এক নাগাড়ে কাজ করতে কার-ইবা ভালো লাগে। কিন্তু নিরলস পরিশ্রম করার মানসিকতা একবার মগজে ঢুকে গেলে তাকে থামানো মুশকিল। ব্যক্তিগত আবেগ-অনুভূতি বজায় রেখেই নিরলস ভাবে পরিশ্রম করলে হাতেনাতে ফল মেলার অজস্র উদাহরণ রয়েছে। ফলে সেই উদাহরণের তালিকায় নিজের নামটাও তুলতে গেলে নিরলস পরিশ্রমের কোনো বিকল্প নেই। স্বপ্ন দেখা যায় অনেক সহজ ভাবে, কিন্তু পূরণ করতে হলে পরিশ্রমই এক মাত্র পথ।

জীবনযাপনের ভারসাম্য

এমনও কিছু অনুষঙ্গ রয়েছে, যা হস্তগত না করেও জীবননির্বাহ করা সম্ভব। কিন্তু চাহিদা এমনই বিষম আবেগ, যা চাহিদা আর চাহিদা পূরণের সীমারেখাটিকে অনেক সময়ই মুছে দিতে পারে। শুধু আর্থিক ভাবে সমৃদ্ধশালী হলেই চলে না, মানসিক ভাবে সম্পদের অধিকারী হতে হয়। স্বাভাবিক ভাবেই মিতব্যয়িতা নিয়ে কোনো মানুষকে যতই সমালোচিত হতে হোক না কেন তা  সম্পদশালী হয়ে ওঠার মোক্ষম অস্ত্র, সে বিষয়ে কোনো দ্বিধা নেই।

Leave a Reply

Close Menu